মদনপুর ডেন্টালের ভুয়া ডাক্তার শিরিনের অপচিকিৎসায় অতিষ্ট এলাকাবাসী।

0
837

মদনপুর ডেন্টালের ভুয়া ডাক্তার শিরিনের অপচিকিৎসায় অতিষ্ট এলাকাবাসী।

হাজী শফিকুল ইসলাম – বন্দর উপজেলার মদনপুর একতা সুপার মার্কেটের ২য় তলায় অবস্থিত মদনপুর ডেন্টাল কেয়ারের ভুয়া ডাক্তার শিরিনের অপচিকিৎসায় অতিষ্ট এলাকাবাসী। সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে,মদনপুর ডেন্টাল কেয়ারের ভুয়া চিকিৎসক শিরিন নিজেকে একজন ডেন্টিস্ট হিসেবে পরিচয় দিয়ে রোগীদের প্রেস্ক্রিপসন বা ব্যবস্থাপত্র দিয়ে থাকেন।এমনকি প্রায় সময় রোগীদের সামনে বসিয়ে রেখে মোবাইল ফোনে অন্য কোন ডাক্তারকে জিঞ্জাসা করে রোগীদের দাতের ঔষদ দিয়ে থাকেন।সম্প্রতি ভুয়া ডাক্তার শিরিনের অপচিকিৎসার শিকার মদনপুর চানপুর এলাকার একজন ভুক্তভোগী সাংবাদিকদের বলেন”আমি দাতের সমস্যা নিয়ে মদনপুর ডেন্টাল কেয়ারে যাওয়ার পর ডাক্তার শিরিন আমাকে অনেকগুলো ঔষদ দিয়ে নিয়মিত খেতে বলেন,ঔষদ খাওয়ার ২/৩দিন পর থেকেই আমার কোমরের নিচের অংশে অতিরিক্ত ব্যাথা হতে শুরু করে।ব্যাথায় কাতর হয়ে পুনরায়  তার কাছে গেলে তিনি নতুন করে আরও অনেকগুলো ঔষদ দিলে ঔষধ খেয়ে আমার ব্যাথা আরও বেড়ে গেলে আমাকে ঢাকায় একটি প্রাইভেট হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা করানো হয়।চিকিৎসকরা পরিক্ষানীরিক্ষা করে বলেন দাতের সমস্যার জন্য যে ঔষধ গুলো দেয়া হয়েছিল তা খেয়েই আপনার কিডনিজনিত সমস্যা দেখা দিয়েছে।ডাক্তার শিরিনের ভুল চিকিৎসায় অসুস্থ হয়ে আমার প্রায় লক্ষ টাকা ব্যয় করতে হয়েছে।ডাক্তার শিরিনের অপচিকিৎসার কথা স্থানীয় মাতব্বরদের বলেও কোন সুষ্ঠু বিচার পাইনি।এব্যাপারে ভুয়া ডেন্টিস্ট শিরিন আক্তারের নিকট জানতে চাইলে তার অফিসে গিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি।ভুয়া ডাক্তার শিরিনের ভাইয়ের মাধ্যমে তার চেম্বার থেকে বিভিন্ন অবৈধ সেক্সুয়েল ঔষধ বিক্রির অভিযোগও রয়েছে তার বিরোদ্ধে।এমনকি সরকারী কোন নিয়ম নীতিকে তোয়াক্কা না করে তার চেম্বারে দাতের এক্সরে মেশিনের ব্যবহারের অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছিলেন কথিত ভুয়া ডেন্টিষ্ট শিরিন আক্তার।এমতাবস্থায় এই কথিত ভুয়া ডাক্তারের অপচিকিৎসার হাত থেকে রক্ষা পেতে জেলা সিভিল সার্জন ও যথাযথ কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা কামনা করছেন মদনপুরবাসী।