সোনারগাঁওয়ে গণধোলাইয়ের শিকার সেই দুই এসআই প্রত্যাহার, তদন্ত কমিটি গঠন

0
740

বিল্লাল হোসেনঃ গণধোলাইয়ের শিকার পুলিশের এসআই মো. আমিনুল ইসলাম ও আব্দুল লতিফ নামে দুইজনকে সোনারগাঁও থানা থেকে গতকাল সোমবার সকালে প্রত্যাহার করে নারায়ণগঞ্জ পুলিশ লাইনে পাঠানো হয়েছে। এদিকে জনতার হাতে আটককৃত পুলিশের দুই এসআই এর সঙ্গে থাকা সোর্স হাবিব, মিঠু ও রুমা নামে ৩ জনকে মামলা দিয়ে আদালতে পাঠিয়েছে।
গত রোববার রাতে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের জামপুর ইউনিয়নের মীরেরবাগ এলাকায় অবস্থিত কাউসার টেক্সটাইল মিলের কর্ণধার শিল্পপতি বিল্লালের বাড়িতে গিয়ে ইয়াবা ব্যবসায়ী বলে তাকে আটক করে ১০ লাখ টাকা উৎকোচ দাবি করে মারপিট করেন।
এ ঘটনা তদন্তে নারায়নগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মাতিয়ার রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাজিদুর রহমান ও জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার প্রধান মামুনুর রশিদ মন্ডলকে সদস্য করে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। গতকাল সোমবার বিকেলে পুলিশের তদন্ত কমিটির সদস্যরা সরেজমিনে গিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় পুলিশের তদন্ত কমিটির সদস্যদের সহায়তা করেন সোনারগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মঞ্জুর কাদের। এ ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল-বি) মো. সাজিদুর রহমানের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, এ ঘটনায় অভিযুক্ত দুই পুলিশের এসআইকে ক্লোজ করা হয়েছে এবং তদন্ত কমিটি ঘটনাস্থলে গিয়ে সরেজমিনে পরিদর্শন করছি ও উপস্থিত লোকজনের বক্তব্য নেয়া হয়েছে। উক্ত ঘটনাটির তদন্ত অব্যাহত রয়েছে।
উল্লেখ থাকে, গতকাল রোববার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে এসআই মো. আমিনুল ইসলাম ও আব্দুল লতিফ ২টি সিএনজি যোগে সোর্স হাবিব, মিঠু ও রুমা নামে এক নারীসহ ৮-১০জন মিলে উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের মীরেরবাগ এলাকার মৃত হোসেন আলীর ছেলে শিল্পপতি বিল্লালের বাড়িতে গিয়ে ইয়াবা ব্যবসায়ী বলে তাকে আটক করে। ।
এ সময় এসআই আমিনুল শিল্পপতি বিল্লালকে ছেড়ে দেয়ার কথা বলে তার কাছে ১০ লাখ টাকা উৎকোচ দাবি করে এবং হাতে হ্যান্ডকাপ পড়িয়ে মারপিট করতে থাকলে, বিল্লাল তার জীবন বাঁচাতে ডাকচিৎকার শুরু করে। এ সময় এলাকাবাসী ঘটনাস্থলে এসে এসআই আমিনুল, সোর্স হাবিব, মিঠু ও রুমা নামে এক নারীসহ আটক করে তাদের উত্তম মাধ্যম দেয়। এ সময় ঘটনাস্থলে হাজার হাজার জনতা এসে শিল্পপতি বিল্লালের বাড়ির চারদিকে ঘেরাও করে রাখে। পরে খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল-বি) মো. সাজিদুর রহমান সোনারগাঁও থানার ওসি (তদন্ত) মো. ওবায়েদুল হকসহ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে এলাকবাসীকে সুষ্ট তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়ে ৫ ঘন্টা পর তাদের উদ্ধার করে।