সোনারগাঁওয়ে গণডাকাতি ॥ কোটি টাকার মালামাল লুট

0
722

Untitled-02 - Copy

আজকের সোনারগাঁওঃ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার বারদী ইউনিয়নে একই রাতে চার গ্রামের চার বাড়িতে গণডাকাতি সংঘটিত হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।  শনিবার দিবাগত রাতে এ গণডাকাতির ঘটনা ঘটে। এসময় ডাকাতরা ককটেল বিস্ফোরন ঘটিয়ে অস্ত্রের মুখে বাড়ির সবাইকে জিম্মি করে নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার, মোবাইলসহ প্রায় কোটি টাকার মামামাল লুট করে নিয়ে গেছে। এ ঘটনায় সোনারগাঁও থানায় একাধিক অভিযোগ দায়ের করা হয়। ডাকাতির সময় এক মিস্ত্রীপাড়া গ্রামের পল্লী চিকিৎসক মশিউর রহমানকে কুপিয়ে ও তার স্ত্রী ও কর্মচারীকে পিটিয়ে আহত করে দুই ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার লুটকরে। এ ঘটনার পর আহতদের সোনারগাঁও উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ডাকাতির সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। দৌলরদী গ্রামের ইউনিয়ন জাতীয়পার্টির নেতা ও বারদী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সদস্য রফিকুল ইসলামের বাড়িতে হানা দেয়। এসময় ডাকাতরা বিল্ডিংয়ের কলাপসিবল গেইটের তালা ভেঙ্গে ভেতরে ঢুকে  অস্ত্রের মূখে পরিবারের সবাইকে জিম্মি করে নগদ ৪ লক্ষ টাকা, ৪ ভরি স্বর্ণ ও ৯০ হাজার টাকা মূল্যের ৪টি মোবাইল সেট লুট করে ডাকাতরা।
অপরদিকে রিবর গ্রামের সানাউল্লাহ মিয়ার বাড়ির কলাপসিবল গেইট ভেঙ্গে পরিবারের লোকজনকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে নগদ ৫০ হাজার টাকা, ১৩ ভরি স্বর্নালংকার, দুটি মোবাইল সেট নিয়ে যায়। একই সময় মছলেন্দপুর গ্রামের রফিকুল ইসলামের বিডিংয়ে ঢুকে নগদ ১ লক্ষ ২০হাজার টাকা, ১২ ভরি স্বর্ন ও দুইটি মোবাইল সেট লুট করে নিয়ে যায়।
এসময় রফিকুল ইসলামের ছোট ভাই বাবুলের চার চালা ঘরের দরজা ভেঙ্গে নগদ ২০ হাজার টাকা ও দুটি স্বর্ণের চেইন নিয়ে যায়। পরে রফিকুল ইসলাম ও বাবুলের ডাক চিৎকারে গ্রামের লোকজন এগিয়ে আসতে থাকলে ডাকাতরা কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরন ঘটিয়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় সোনারগাঁও থানা পুলিশ ডাকাতি সংঘটিত বাড়িগুলো পরিদর্শন করেছেন। এদিকে সোনারগাঁও থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক(এএসআই) আবুল কালাম আজাদ একই ইউনিয়নের গোয়ালপাড়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে ডাকাতির মালামাল জহিরুল ইসলামের বাড়ি থেকে উদ্ধার করেন। ডাকাতির সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে সুজন নামের এক যুবককে আটক করেছে।