নাছিমার আশায় ঘুরেবালি চেয়ারে বসলেন মান্নান

0
769

Untitled-02 - Copy

আজকের সোনারগাঁওঃ সোনারগাঁও উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসাবে নাছিমা আক্তার দায়িত্ব পেয়ে  ভেবেই বসেছিলেন আওয়ামীলীগ সরকার থাকা পর্যন্ত নয়ছয় জুজুর ভয় দেখিয়ে নিজের আখের খুছানো হবে । তবে নাছিমার সেই স্বপ্ন বেশী দূর এগোতে পারলনা। সত্যের কাছে কোন মিথ্যা টিকতে পারেনা । জনগনের ভোটে নির্বাচিত ব্যাক্তিই চেয়ারে বসার যোগ্য । আর সোনারগাঁয়ে দীর্ঘদিন পরে হলেও জনগনেরই জয় হল এমনটাই বলছেন সোনারগায়ের সাধারণ লোকজন। নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলা চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা আজহারুল ইসলাম মান্নান অবশেষে দীর্ঘ ২৮ মাস পর  বৃহস্পতিবার চেয়ারম্যান পদে দায়িত্বভার গ্রহন করলেন।  স্থানীয় সরকার,পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনলায় সিনিয়র সহকারী সচিব লুৎফুন নাহারের স্বাক্ষরিত এক পত্রতে তাকে হাইকোর্ট এর দায়েরকৃত রিট পিটিশনের পরিপ্রেক্ষিতে তাকে চেয়ারম্যান পদে পূর্নবহালের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রসাশক ও সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে নির্দেশ প্রদান করে।
এর আগে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের উপজেলা-২ শাখার ৮ মার্চের প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে, সোনারগাঁও উপজেলা চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা আজহারুল ইসলাম মান্নানের বিরুদ্ধে দুটি নাশকতা মামলায় সোনারগাঁও থানা পুলিশ আদালতে অভিযোগপত্র দায়ের করলে তা গৃহীত হয়। এ কারণে উপজেলা পরিষদ আইন অনুযায়ী তাকে পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছিল। এর আগে মান্নান গত বছর সাময়িক বরখাস্ত হওয়ার পর মন্ত্রণালয়ের ওই আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট পিটিশন করেছিলেন। পরে মন্ত্রণালয়ের সেই আদেশ তিন মাসের জন্য স্থগিত করেন উচ্চাদালতের একটি বেঞ্চ।
গত বছরের ১৬ ফেব্রুয়ারি তার বিরুদ্ধে দুটি মামলার অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল হওয়ায় তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছিল। পুলিশের দায়ের করা দুটি বিস্ফোরক মামলার চার্জশীট আদালতে দাখিলের পর দ্বিতীয়বারের মতো তিনি বরখাস্ত হয়েছিলেন।

এর আগে মান্নান গত বছর সাময়িক বরখাস্ত হওয়ার পর মন্ত্রণালয়ের ওই আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট পিটিশন করেছিলেন। পরে মন্ত্রণালয়ের সেই আদেশ তিন মাসের জন্য স্থগিত করেন উচ্চাদালতের একটি বেঞ্চ।

সোনারগাঁও উপজেলা চেয়ারম্যান আজহারুল ইসলাম মান্নান জানান, ক্ষমতাসীন দলের সমর্থকেরা একের পর এক মিথ্যা মামলা দিয়ে আমাকে দায়িত্ব পালন করা থেকে দূরে সরিয়ে রেখেছিল।
অবশেষে আমি ন্যায় বিচার পেয়ে চেয়ারম্যান পদে দায়িত্বভার ফিরে পেয়েছি। সাধারন জনগনের পাশে থেকে তাদের সেবা করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি।