ধর্মের নামে প্রতারণার ঘোর বিরোধী কাজী নজরুল ইসলাম

0
5862

গাজী মোবারক-
‘নয়ন ভরা জল গো তোমার আঁচল ভরা ফুল
ফুল নেবো না অশ্রু নেবো ভেবে হই আকুল’
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিরহ ও মিলনের মাঝে খুঁজে পেয়েছেন ধ্বংসের রসায়ন । কবি মিলনে তৃপ্তির মাঝে অতৃপ্তি আবার বিরহে অতৃপ্তির মাঝে তৃপ্তি অনুভব করতেন বলেই অন্য সবার চেয়ে আলাদা বিশ্বময়ী দ্রোহ ও প্রেমের কবি। প্রিয়ার কাছ থেকে তিনি জল নিবেন না অশ্রু নিবেন এই ভাবানার সাগরে ডুব দিয়ে দেখেছেন পাওয়ার সুখ যেমন না পাওয়াকে তাড়িয়ে বেড়ায় আবার না পাওয়ার কষ্টও এক অনন্ত মহিমার আবেশে জড়িয়ে রাখে। প্রেমের পূজারী ও প্রথা-বিরুদ্ধ কবি কাজী নজরুল ইসলাম প্রেম-বিরহের মোহনায় প্রতিনিয়ত বিচরন করেছেন অমৃত তৃপ্তি নিয়ে। ১৮৯৯-১৯৭৬ সালে প্রথার বিরুদ্ধে এক হাতে বাঁকা বাঁশের বাঁশি অন্য হাতে রণতুর্য নিয়ে তাঁর আগমণ বাংলা সাহিত্যেকে অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী করেছে, সত্য-সুন্দর ও পবিত্র ভালবাসাকে বুকে জড়িয়ে রাখতে শিখিয়েছে। যে হাতে তিনি প্রিয়ার খোঁপায় তারার ফুল গেঁথে দিয়েছেন সেই হাতেই অত্যাচারির বুকে বসিয়ে দিয়েছেন বিষেভরা খড়গ।
সুর, ছন্দ, প্রেম, অনুরাগ, দ্রোহ, বিরহ, মিলন, সংকট, বিচ্ছেদ, প্রতিবাদ, আপোষ আর প্রীতির অনন্য এক অবয়ব নিয়ে নজরুলের আগমনে আমাদের করেছে গর্বিত, বিমোহিত। তাঁর ব্যক্তিজীবন যেমন ছিলো বর্ণাঢ্য তেমনি তাঁর সাহিত্য প্রতিভা বহুমুখি অবদানে ভরপুর। নজরুল ছিলেন মানবতার কবি। মানুষের পূজোয় পূজোরী। তাঁর কন্ঠে শুনেছি, ‘আমি বিদ্রোহী রণ ক্লান্ত’, আবার মানবতার কন্ঠে তুলেছেন সাম্যের আওয়াজ, ‘গাহি সাম্যের গান, মানুষের চেয়ে বড় কিছু নয়, নহে কিছু মহিয়াণ’। একমাত্র নজরুল তাঁর লেখনিতে মানুষের মাঝে স্বর্গ ও নরক খুঁজে পেয়েছেন। সমকালে তাঁর দেশাত্ববোধ ও রাজনীতি ছিলো গণমানুষের। মুসলিম, হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান তাঁর বিবেচ্য ছিলো না। বিবেচ্য ছিলো মানবতা। মানবতা ও সাম্যবাদী কবি নজরুলকে ধর্ম বিষয়ে কিছু বললে তিনি তা মোটেও সহ্য করতেন না। বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম ধার্মিক ছিলেন, ধর্মান্ধ নয়। তাঁর ধর্ম ছিলো প্রকৃত মানুষের ধর্ম। প্রতিটি ধর্মেই কবি দেখতে পেয়েছিলেন সংকীর্ণতা ও স্বার্থপরতা। তিনি ছিলেন ধর্মের নামে প্রতারণার ঘোর বিরোধী। তাই ধর্ম থেকে সব সংকীর্ণতা ও স্বার্থপরতা দূর করতে আজীবন যুদ্ধ করেছেন। তাঁর কবিতায় খুঁজে পাই ধর্ম ব্যবসায়ীদের কপট চরিত্র,
‘তব মসজিদ মন্দিরে প্রভূ নাই মানুষের দাবী
মোল্লা পরুত লাগায়েছে তার সকল দুয়ারে চাবি’।