সোনারগাঁওয়ে এক গৃহবধুর লাশ হাসপাতালে ফেলে পালিয়ে গেলেন শশুর বাড়ীর লোকজন

0
1118

 

আরাফাত হোসেন সিফাতঃ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের মুন্দিরপুর গ্রামের নাদিয়া আক্তার (রুমি) নামে এক গৃহবধুর লাশ হাসপাতালে ফেলে পালিয়ে গেলেন শশুর বাড়ীর লোকজন। গতকাল শুক্রবার দুপুরে সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় গৃহবধুর পরিবার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।  মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, জেলার আড়াইহাজার উপজেলার সাতগ্রামে ইউনিয়নের পাকুনতুরা গ্রামের কবির হোসেনের মেয়ে নাদিয়া আক্তার (রুমি) সঙ্গে সোনারগাঁও উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের মুন্দিরপুর গ্রামের আবুল হোসেন ভূঁইয়ার ছেলে কবির হোসেন ভূঁইয়ার সঙ্গে ৮ মাস আগে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে যৌতুকের জন্য ওই গৃহবধুর শশুর বাড়ির লোকজন যৌতুকের জন্য বিভিন্ন সময় শারীক ও মানসিক ভাবে নির্যাতন চালাতো। দাবিকৃত যৌতুক না পেয়ে তার শশুর বাড়ীর লোকজন পরিকল্পিত ভাবে নাদিয়া আক্তার (রুমি) কে হত্যা করে তার লাশ হাসপাতালে ফেলে রেখে ও বাড়ী ঘড়ে তালা বদ্ধ করে পালিয়ে যায় শশুর বাড়ী লোক জন।
নিহত গৃহবধূ নাদিয়া আক্তার (রুমির) বাবা কবির হোসেন বলেন, যৌতুকের টাকা না পেয়ে আমার মেয়ের শশুর বাড়ী লোকজন তাকে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করে তার লাশ হাসপাতালে ফেলে রেখে ও বাড়ী ঘড়ে তালা বদ্ধ করে পালিয়ে যায় শশুর বাড়ীর লোক জন।
সোনারগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জ মঞ্জুর কাদের বলেন, নিহত গৃহবধুর বাবা কবির হোসেন বাদি হয়ে ওই গৃহবধূর স্বামী হাবিল হোসেন, শশুর আবুল হোসেন, শ্বাশুরী সাজেদা বেগম, দেবর হুমায়ন মিয়াকে আসামী করে থানা একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। ওই গৃহবধু লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসলে বুঝা যাবে এটা হত্যা না কি অন্য কিছু।