সোনারগাঁয় অন্তসত্বা গৃহবধু হত্যার ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ

0
4286

আজকের সোনারগাঁঃ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার মুন্দিরপুর গ্রামের অন্তসত্বা এক গৃহবধু হত্যার ঘটনায় থানায় মামলার হওয়ার তিন দিন অতিবাহিত হলেও কোন আসামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এ নিয়ে নিহতের পরিবার ও এলাকাবাসীর মধ্যে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, আড়াইহাজার উপজেলার সাতগ্রামে উপজেলার পাকুতুরা গ্রামের কবির হোসেনের মেয়ে নাদিয়া আক্তার (রুমি) সঙ্গে সোনারগাঁ উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের মুন্দিরপুর গ্রামের আবুল হোসেন ভূইয়ার ছেলে আদেল হোসেন ভূইয়ার সঙ্গে ৮ মাস পূর্বে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে বিভিন্ন সময়ে ৫ লাখ টাকা যৌতুক হিসেবে দেওয়া হয়। পরবর্তীতে গত কয়েকদিন পূর্বে ২ লাখ টাকা যৌতুক দাবী করলে দাবীকৃত যৌতুক না দেওয়ায় ওই গৃহবধুর উপর অমানসিক ভাবে নির্যাতন চালায় তার স্বামী ও শ্বশুর বাড়ীর লোকজন। গত শুক্রবার একই দাবীতে তার শ্বশুর বাড়ীর লোকজন গৃহবধু পাঁচ মাসের অন্তসত্বা নাদিয়া আক্তার রুমিকে ঘরের মধ্যে তালা বদ্ধ করে পিটিয়ে মারাত্মক ভাবে আহত করে। মারাত্মক আহত অবস্থায় তাকে সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কতর্ব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। তার মৃত্যুর সংবাদ পেলে শ্বশুর বাড়ির লোকজন হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যায়। নিহত গৃহবধূ নাদিয়া আক্তার (রুমির) বাবা কবির হোসেন বলেন, আমার মেয়ের বিয়ের পর থেকেই তার স্বামী ও শ্বশুর বাড়ীর লোকজন যৌতুকের জন্য আমার মেয়েকে বিভিন্ন সময়ে অমানসিক ভাবে নির্যাতন চালাত। যৌতুকের টাকা না পেয়ে আমার অন্তসত্বা মেয়েকে পেটে লাথি মেরে হত্যা করে পালিয়ে যায় তারা। আমি আমার মেয়ে হত্যার সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করে অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবী জানান তিনি। সোনারগাঁ থানার ওসি মঞ্জুর কদের বলেন, নিহত গৃহবধুর হত্যার বিষয়ে থানায় একটি মামলা নেওয়া হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে।