সোনারগাঁওয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে শুক্রবারএলেই তীব্র যানজট, ভোগান্তীতে যাত্রীরা

0
765

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে বছরজুরে শুক্রবারএলেই তীব্র যানজট, ভোগান্তীতে পরে যাত্রীরা । গত বৃহস্পতিবার রাতে থেকে দিনব্যাপী ৩০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে থেমে থেমে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এতে মেঘনা সেতুর দুপাশে প্রায় ২০ কিলোমিটার ও মদনপুর কাঁচপুর সেতু থেকে সাইনবোর্ড পর্যস্ত প্রায় ১০ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়। এতে ভোগান্তীতে পড়ে কয়েক হাজার যাত্রী। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মহাসড়কে থেমে থেমে তীব্র যানজট লেগেই রয়েছে।
কাঁচপুর হাইওয়ে পুলিশের ওসি শেখ শরিফুর আলম জানান, গত বৃহস্পতিবার রাতে বৃষ্টির কারনে ও ঈদকে সামনে রেখে মহাসড়কে অতিরিক্ত গাড়ীর চাপে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া মেঘনা সেতুর টোল আদায়ে কিছুটা বিলম্ব হওয়ায় ও মেঘনা সেতুর একটি করে লেন হওয়ায় সকাল থেকে সেতুর দুমুখে অতিরিক্ত গাড়ী আটকা পড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া কাঁচপুর সেতু থেকে মদনপুর ও সাইনবোর্ড পর্যন্ত যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। যানজট নিরসেন হাইওয়ে পুলিশ রাত থেকে মহাসড়কে কয়েকটি ভাগে ভাগ হয়ে কাজ করছে।
সরেজমিনে মহাসড়ক ঘুরে দেখা গেছে, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মেঘনা সেতু থেকে নাঙ্গলবন্দ ব্রিজ পর্যন্ত ও মদনপুর এলাকা থেকে কাঁচপুর সেতু হয়ে সাইনবোর্ড পর্যন্ত যানজটের সৃষ্টি হয়। এছাড়া কাঁচপুর সিলেট মহাসড়কেও দীর্ঘ যানজট লক্ষ্য করা গেছে। যানজটে থেমে থেমে যান চলাচলের ফলে অনেক যানবাহন রাস্তার মধ্যে বিকল হয়ে যাওয়ায় মহাসড়কের যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে অনেক যাত্রী পায়ে হেটে গন্তব্যে যেতে দেখা গেছে।
অনুসন্ধানে দেখা গেছে, কাঁচপুর এলাকায় মহাসড়কের উপর বিভিন্ন যাত্রীবাহী পরিবহন থামিয়ে চিহ্নিত চাঁদাবাজ একাদিক মামলার আসামী হেলাল মিয়া, আমজাদ হোসেন, ও শিমরাইল এলাকায় সামাদ বেপারী, সোহেল মিয়া সহ আইন শৃঙ্খলা-বাহিনীর সদস্যদের চাঁদাবাজীর কারনে প্রতিদিন মহাসড়কে যানজট লেগেই থাকে। এ ছাড়া শিমরাইল মোড় ও কাঁচপুর এলাকায় অবৈধ স্থাপনা নির্মান, মহাসড়কের উপর কাউন্টার সার্ভিস বসিয়ে পরিবহন দাড় করিয়ে রেখে যানজটের সৃষ্টি হয়। এছাড়া পুলিশের কতিপয় কর্মকর্তারা পরিবহন দাড় করিয়ে রেখে যানজটের সৃষ্টি করেন। কাউন্টার ব্যবসায়ীরা অবৈধ স্থাপনা দখল করে চাঁদাবাজরা থানা পুলিশ ও কাঁচপুর হাইওয়ে পুলিশকে ম্যানেজ করেই ব্যবসা পরিচালনা করছেন।