জিন্নাহ আওয়ামীলীগের টিকেটে ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে বিএনপি নেতার স্মরণসভায় সভাপতিত্ব করলেন

0
5157

আজকের সোনারগাঁওঃ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে বিএনপির অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি জাহিদ হাসান জিন্নাহ। সোনারগাঁ উপজেলার সনমান্দি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা বিল্লাল হোসেনের হত্যাকান্ডের তিন বছর অতিবাহিত হওয়ার পরও বিচার কাজ শেষ না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশের স্মরনসভা অনুষ্ঠিত হয়। এ নিয়ে স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও বিএনপি সহ সাধারণ মানুষের মাজে সমালোচনার ঝর উঠেছে সোনারগাঁজুরে।
গত বৃহস্পতিবার উপজেলার সনমান্দি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা বিল্লাল হোসেনের তৃতীয় মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে তার ফতেপুর গ্রামের বাড়িতে স্মরনসভা অনুষ্ঠিত হয়। বিল্লাল হোসেনের মেয়ে বিউটি আক্তার বলেন, আমার বাবাকে তিন বছর আগে আওয়ামীলীগের সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করেছে। ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবের কারনে তিন বছরেও আমার বাবার হত্যাকান্ডের বিচার কাজ শুরুহয়নি। প্রতিনিয়ত আসামীরা আমাদের পরিবারের সদস্যদের মামলা তুলে নেওয়ার জন্য হুমকি দিচ্ছে।
এ বিষয়ে সনমান্দির সন্তান জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও সোনারগাঁ থানা বিএনপির সভাপতি খন্দকার জাফর আহমেদ জানায়, এই বিএনপি নেতার হত্যাকান্ডের আসামীরা যে দলের নেতা কর্মী, সেই দলের নেতাই যদি স্মরন সভায় সভাপতিত্ব করেন সেটা চরম নিন্দনীয়। ঘৃণা ও দিক্কার জানিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন যারাই এই কাজটি করেছে তাদেরকে বিএনপির কর্মী ও সমর্থকরা ক্ষমা করবেনা।
এদিকে আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীদের দাবী, দলের ভিতর যে কাউয়া ঢুকেছে তারই একজন হলেন জাহিদ হাসান জিন্নাহ । তা না হলে, যে সভায় বসে জেলা ও থানা বিএনপির সিনিয়র নেতারা আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীদের দোষারোপ করে এবং শেখ হাসিনা সরকারকে কঠোর ভাষায় সমালোচনা করে সরকার উত্খাতের কথা বলে, সেই অনুষ্ঠানে কি করে যুবলীগ নেতা হয়ে সভাপতিত্ব করেণ ।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সহ সভাপতি, সোনারগাঁ থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজহারুল মান্নান,অন্যাননের মধ্যে ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক মামুন মাহামুদ, নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাধারন সম্পাদক এটি এম কামাল, সোনারগাঁ থানা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক কাজ্বী নজরুল ইসলাম টিটু, সনমান্দি ইউনিয়ন বিএনপির সাধারন সম্পাদক আবুল হাসেম রতন, বিল্লাল হোসেনের মেয়ে বিউটি আক্তার, সাদিপুর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি কামরুজ্জামান, সহ সভাপতি সেলিম সরকার, সনমান্দী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান প্রিন্সিপাল শাহ জাহান, সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট আব্দুর রহিম, বারদী ইউনিয়ন বিএনপির সাধারন সম্পাদক হাজী আব্দুর রহমান মুন্সি প্রমূখ।