নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের সহযোগিতার আহ্বানে গনসচেতনা মুলক প্রচারনায় মাহফুজুর রহমান কালাম

0
483

আজকের সোনারগাঁওঃ সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান কালাম রবিবার বিকাল ৫ টার সময় অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের নিয়ে নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের সহযোগিতার আহ্বানে গনসচেতনা মুলক প্রচারনার অংশ হিসাবে মোগরা পাড়া চৌরাস্তা এলাকায় র‌্যালী করেন । প্রচারনা চলাকালে তিনি বলেন নির্যাতিত রোহিঙ্গারা আমাদের মতই মুসলমান তাদের বিপদে আমাদের সকলের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়া উচিত । রাষ্ট্রীয় ভাবে জননেত্রী শেখ হাসিনা দূরদশর্তিার পরিচয় দিয়ে মানবিক কারনে আরাকান থেকে বিতারিত রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে সর্বত্র প্রশংশনীয় । এসব নির্যাতিত ও বিতারিত মানুষদের পাশে দাড়িয়ে যার যতটুকু সার্মথ্য আছে তা দিয়েই সহযোগিতা করতে হবে । চৌরাস্তা এলাকার বিভিন্ন মার্কেটের ক্রেতা বিক্রেতা ও পথচারিদের মাঝে রোহিঙ্গাদের করুন চিত্র তুলে ধরে মানবিক কারনে সাহয্যের আহ্বান জানিয়ে বলেন আসুন নির্যাতিত রোহিঙ্গা মুসলমানদের পাশ দাড়াই  । এসময় উপস্থিত ছিলেন নারায়নগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান মাসুম,সনমান্দী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সাহাবুদ্দিন সাবু, উপজেলা সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি আজিজুল ইসলাম মুকুল, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রাসেল মাহমুদ, যুবলীগ নেতা আমির হোসেন আমু,জেলা তাঁতীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জসিমউদ্দিন লিটন প্রমুখ। উল্লেখ্য ঐতিহ্যবাহী স্বাধীন আরাকান রাজ্য, যা বর্তমানে মিয়ানমারে দখলীভূক্ত হয়ে রাখাইন রাজ্যে পরিনত হয়েছে, যেখানে রোহিঙ্গা জাতি গোষ্ঠী বংশ পরম্পরায় শত শত বৎসর যাবৎ নিজ বাস ভূমিতে বসবাস করে আসছে। বিগত ১৯৬২ সালে নে উইন ক্ষমতা দখলের পর রোহিঙ্গাদের সাংবিধানিক অধিকার বাতিল করে। ১৯৭০ সাল থেকে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব সনদ প্রদান বন্ধ করে দেয়। ১৯৭৪ সাল থেকে ভোটাধিকার কেড়ে নেওয়া হয়। এমতাবস্থায় ১৯৭৮ সালে রোহিঙ্গাদের উপর জুলুম নির্যাতন করে তাদের ভিটামাটি থেকে বিতাড়ন শুরু করে। বর্তমানে ১৯৮৪, ১৯৮৫, ১৯৯০ এবং ২০১২ সালে আগত প্রায় ৫ লক্ষ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে অবস্থান করছে। তদুপরি মরার উপর খারার ঘা ২০১৬ ডিসেম্বর মাসে এবং ২০১৭ এর ২৫ আগষ্ট থেকে আরও প্রায় ৫ লক্ষ রোহিঙ্গা কে তাদের বাড়িঘর জালিয়ে দিয়ে হত্যা নির্যাতন করে বাংলাদেশে বিতাড়ন করেছেন।