এমপি খোকার সাথে সরকারী কর্মকর্তাদের আনন্দ ভ্রমন ও নিরানন্দ বির্তক !

0
1381

Untitled-02-Copy-150x150

হাজী মোঃ শফিকুল ইসলামঃ সোনারগাঁ উপজেলার সরকারী কর্মকর্তাদের কক্সবাজার ট্যুর নিয়ে নানা আলোচনা সমালোচনা চলছে সোনারগাঁয়ের আনাচে কানাচে। অফিসার্স ক্লাবের নামে আনন্দ ভ্রমন কেউ বলছে ঠিক আছে ,কেউ বলছে ঠিকনেই , কেউবা আবার অভিযোগের পাহাড় তুলে ধরে দায় দিতে চাইছে অফিসার্স ক্লাবের আনন্দ ভ্রমনের উপর। সোনারগাঁ জনপ্রতিনিধি ফোরাম ও সোনারগাঁ অফিসার্স ক্লাব যৌথ ভাবে গত বৃস্পতিবার আনন্দ ভ্রমনে গিয়েছিল কক্সবাজার। এর প্রধান উদ্যোক্তা বর্তমান এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা। এবারই প্রথম নয় তিনি কয়েকবারই এরকম আনন্দ ভ্রমনের আয়োজন করেছিলেন। কোন এমপি এরকম ভাবে সবার সাথে মিশে আনন্দ উৎসব করেননি। এতে করে তিনি বড় মনের পরিচয় দিয়েছেন বলে অনেকে মত প্রকাশ করেন। সফল আনন্দ ভ্রমনের কারণে সোনারগাঁ উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা শাহীনূর ইসলামকে অফিসার্স ক্লাবের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা দিয়ে নতুন করে আলোচনায় নিয়ে আসে বিষয়টিকে। আলোচনা সমালোচনায় সরগরম এই আনন্দ ভ্রমনকে অনেকেই দেখছেন স্বাভাবিক এবং উৎসাহের বিষয় হিসাবে। সমালোচকদের মতে জনপ্রতিনিধিদের সাথে সরকারী কর্মকর্তারা সবাই মিলে আনন্দ ভ্রমনে গিয়ে ভুল করেছে, কাজের ক্ষতি করেছে, কিছু লোকদের অবৈধ কাজে সুবিধা করে দিয়েছে, সিনিয়র জুনিয়র মিলে আনন্দ করে চেইন অব কমান্ড নষ্ট করেছে। তবে সুধী মহল এটা কোন সমালোচনার বিষয় নয় বলে মনে করছেন।
এ ব্যাপারে সোনারগাঁও রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি আবদুস ছাত্তার প্রধান বলেন, আনন্দ করার অধিকার সবারই আছে, হোক সে সরকারী কর্মকর্তা কিংবা সাধারণ দিনমুজুর। সপ্তাহে ২ দিন সরকারী ছুটির ব্যবস্থা করেছে সরকার, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মানসিক এবং শারীরিক  স্বাস্থ্য ঠিক রেখে নতুন উদ্দোমে কাজ করার জন্য। আর ছুটির দিনে পরিবার পরিজন নিয়ে আনন্দ ভ্রমনে যাওয়া দোষের কিছুনা এটা কোন সমালোচনার বিষয় বলে আমি মনে করি না।
সোনারগাঁও প্রেস ক্লাবের সভাপতি অসিত কুমার দাস বলেন এর আগে এত বড় পরিসরে অফিসার্স ক্লাবের সদস্যদের কোথাও যেতে দেখি নাই। তবে সরকারী ছুটির সময় কর্মকর্তারা ফ্যামেলি নিয়ে ট্যুরে গিয়ে থাকলে বিষয়টি দোষের নয়।