কাঁচপুর হাইওয়ে পুলিশের চাঁদাবাজীর প্রতিবাদে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে লেগুনা ও অটোরিক্সা মালিক শ্রমিকদের বিক্ষোভ

0
1367

নারায়নগঞ্জের সোনারগাঁয়ের কাঁচপুর হাইওয়ে থানা পুলিশের বেপরোয়া চাঁদাবাজীর প্রতিবাদে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে লেগুনা ও ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সা মালিক শ্রমিক ও তাদের পরিবারের সদস্যদের বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার (২ জানুয়ারী) বেলা ১১টায় মহাসড়কের কাঁচপুর এলাকায় নারী পুরুষ ও শিশুসহ অন্তত দুই শতাধিক মালিক শ্রমিক আধা ঘন্টা মহাসড়ক অবরোধ করে এ বিক্ষোভ প্রদর্শন করে এবং এ চাঁদাবাজ পুলিশ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। এসময় ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হলে যাত্রী সাধারন অবর্নীয় ভোগান্তির শিকার হয়।
এসময় ভুক্তভোগীরা জানায়, মহাসড়কে লেগুনা ও ব্যাটারী চালিত রিক্সা চলাচলে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রীর নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও আমাদের পরিবার পরিজন নিয়ে জিবিকা নির্বাহের তাগিদে মহাসড়কে লেগুনা ও ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সা চালাতে বাধ্য হই। একদিন গাড়ি না চালালে আমাদের সংসারে চুলা জলে না। সেই দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে কাঁচপুর হাইওয়ে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শফিক, রমজান ও সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) কুদ্দুস আমাদের উপর বিপুল পরিমান চাঁদার বোঝা চাপিয়ে দেয়। মহাসড়কে চলতে হলে এ চাঁদাবাজ পুলিশ কর্মকর্তাদেরকে লেগুনা প্রতি ভর্তি ফি ১৫ হাজার টাকা এবং মাসিক চাঁদা ১০ হাজার টাকা, ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সা প্রতি মাসে ৫ হাজার টাকা নতুবা রাস্তায় পেলে ব্যাটারী খুলে রেখে দেয়া হয়।
বিক্ষোভকারীরা জানায়, এ চাঁদাবাজদের দাবীকৃত ভর্তি ফি এবং মাসিক চাঁদা দিয়ে দিব্যি মহাসড়কে চলছে ঢাকা মেট্রো-ন ১৪-১৬৮৮, ঢাকা মেট্রো-ছ-১১-৩৪৩৬, ঢাকা মেট্রো-থ-০০-৪৯৩, ঢাকা মেট্রো-ম-১১-৮০৪২, ঢাকা মেট্রো-চ-০২-৪০৫৩, নারায়ণগঞ্জ-ছ-১১-০২৪২, নারায়ণগঞ্জ-ছ-১১-০২৫১, নারায়ণগঞ্জ-ছ-১১-০২৬৫, নারায়ণগঞ্জ-ছ-১১-০১৫৫, নারায়ণগঞ্জ-ছ-১১-০০৬৩, নারায়ণগঞ্জ-ছ-১১-০১৮৫ এবং কনষ্টেবল মামুনের নামে একটি নাম্বার বিহীন লেগুনাসহ আরো অনেক লেগুনা। তাদের দাবী অনুযায়ী চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালেই মহাসড়ক থেকে লেগুনা আটক করে হাইওয়ে থানায় নিয়ে যাওয়া হয় এবং ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সা থেকে ব্যাটারী খুলে ছেরে দেয়া হয়। তাদের এহেন অত্যাচারে আমরা অতিষ্ঠ হয়ে পরেছি।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, অটোরিক্সা চালক মাসজিন, রশিদ, মামুন, আশ্বেদ, এমদাদ ও ইব্রাহিম এবং লেগুনা মালিক পারভেজ, মোক্তার হোসেন, আনোয়ার হোসেন ও আক্তার হোসেনসহ দুই শতাধিক মালিক শ্রমিক প্রমূখ।