কথিত পুলিশ সোর্স ইভটেজার নুরুজ্জামান গ্রেফতার ॥ এইচএসসি পরিক্ষার্থী মেহেরুনের পরিবারে স্বস্থি

0
958

 

আজকের সোনারগাঁওঃ সোনারগাঁ উপজেলার সাদিপুর ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার জয়নাল আবেদীনের ভাতিজা কথিত পুলিশ সোর্স এলাকার মেয়েদের বিরক্ত করত । ২০১৮ সালের এইচ এস সি পরক্ষিার্থী সিরাজুলের মেয়ে পরিক্ষা দিতে যাওয়ার পথে নুরুজ্জামান ও ওয়াসীম নামে দুই বখাটে ইভটিজিং করে । এ ব্যাপারে সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকতৃা শাহিনুর ইসলামের কাছে লিখিত ভাবে াভিযোগ দিয়ে এর প্রতিকার চান ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর বাবা । উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিনুর ইসলাম সোনারগাঁ থানা পুলিশকে দুই ইভটেজারকে গ্রেফতার করার নির্দেশ দিলে সোনারগাঁ থানা পুলিশ বুধবার বিকালে কাঁচপুর এলাকা থেকে নুরুজ্জামানকে গ্রেফতার করে । এতে করে ঐ এলাকার অভিভাবক সহ ভুক্তভোগী পরিবারের লোকজনদের স্বস্থি ফিরে এসছে । উল্লেখ্য-

সোনারগাঁ উপঝেরার সাদীপুর ইউনিয়নের সিঙলাব গ্রামের ৫৫ বছর বয়সী সিরাজুল ইসলামের মেয়ে এইচএসসি পরিক্ষার্থী মেহেরুন নেছা ্ সে কাঁচপুর সিনহা কলেজ থেকে এবারের এইচএসসি পরিক্ষায় অংশ নিচ্ছে। চেঙ্গাইন বরাব এলাকার স্থানীয় বখাটে ওয়াসিমের উৎপাতে আতঙ্কিত ও সঙ্কিত মেহেরুন ঠিকমত পরীক্ষা দিতে পারছিল না। ভুক্তভোগী বাবা সিরাজুল ইসলাম জানান, তার ৭ জন মেয়ে একজন ছেলে নিয়ে কোন মতে কৃষিকাজ করে জীবিকা নির্বাহস করি । আমার মেয়ে মেহেরুন নেছা এবার এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে সিনহা কলেজ থেকে । আমার দরিদ্রতার সুযোগ নিয়ে এলাকার বখাটে ওয়াসিম ও সোনারগাঁ থানা পুলিশের সোর্স নুরুজ্জামান প্রতিনিয়ত রাস্তায় কলেজে যাওয়ার সময় উক্তত্ত করে । নানা রকম কু প্রস্তাব দেয় ্ আমরা গরিব মানুষ তাদের ভয়ে কিছুই বলতে পাড়িনো । গত সোমবার আমার মেয় পরীক্ষা দিতে গেলে বখাটে ওয়াসিম ও নুরুজ্জামান আমার মেয়ের পথ রোধ করে দারয় এবং নিজের লুঙ্গি খুলে অঅমার মেয়ের সামনে দারিয়ে থাকে । আমার মেয়ে ল্জ্জায় বাসায় ফিরে এস পরিবারের কাছে কিছু খুলে বলে । আমার ছেলে ঘটনার প্রতিবাদ করলে নুরুজ্জামান ওয়াসিম রেজাউল একত্রিত হয়ে আমার ছেলে হানিফ কে মারধর করে । মারধর করেও ক্ষান হয়নি বরাব এলাকা থেকে ১০ থেকে ১২ জন লোক নিয়ে আমার নিজের গ্রাম সিংলাব এলাকায় আমার বাড়িতে হামলা করে । হামলায় আমার ৩ মেয় গুরতর আহত হয় । গ্রামবাসী তাদের হামলা ঠেকাতে ডাকাত ডাকাত বলে মাইকে ঘোষনা দিলে তারা পালিয়ে যায় । আহত অবস্থায় আমার মেয়ে শিরিনা, মেহেরুন ও আখি আক্তারকে সোনারগাঁ স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করি ।