মের্সাস এস কে এন্টারপ্রাইজের তাবিজে চলে সোনারগাঁয়ের বালু ক্যাসিনো

0
188

আজকের সোনারগাঁওঃ  মের্সাস  এস কে  এন্টারপ্রাইজের নাম ব্যবহার করে রাতের আধারে আনন্দবাজার এলাকার তীর ঘেষে বালুকাটার ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের ফলে মেঘনা নদীতে বিলিন হওয়ার উপক্রম আনন্দবাজার হাট সহ পুরো এলাকা ।  খোজ নিয়ে জানা গেছে মের্সাস  এস কে  এন্টারপ্রাইজ নুনেরটেক এলাকা ও আন্দবাজার এলাকার মাঝ নদীর   সামান্য কিছু অংশ বালু মহল হিসাবে ইজারা নিয়েছে । অথচ মহাসিন্ডিকেটিএই নামের তাবিজ বিক্রি করে যত্রতত্র ডেজার বসিয়ে বালুকাটা চালিয়ে যাচ্ছে । আর এই কাজটি যারা করছে তাদের নাম মুখে আনা নিষেধ এমনটাই বলছেন এলাকাবাসী । নাম প্রকাশ না করার শর্তজুরে দিয়ে আনন্দবাজার এলাকার অনেকের মুখে বেরিয়ে এল বালুর ক্যাসিনো চালানো সেই দূর্বৃত্তদের নাম । ক্যাসিনো সম্রাটকে হার মানিয়ে চালাচ্ছে বালু কাটার ক্যাসিনো যন্ত্র । বালু কাটার মেসিন ঘুরলেই বালুর টাকা সিন্ডিকেটের পকেটে । সোনারগাঁয়ের আনন্দবাজার এলাকা বিলিন হওয়ার পথে কিছু বালু খেকো ব্যবসায়ীদের কারনে ।

বৈদ্যের বাজার ইউনিয়নের ছনপাড়ার আলামিন, ক্যাডার বাঙ্গি কবির, শহিদুল্লাহ, বাবুরালী, গাজী, হরিগন্জের কারেন্ট জাল বেপারি গোলজার, কালাম, জাতীয় পার্টি নেতা মোহাম্মদ আলী মেম্বার, মোবারক পুরের ক্যাডার সানাউল্লাহ বেপারী, বিএনপি নেতা গাজি আওলাদ, রউফ চেয়ারম্যান এর ছেলে মোহাম্মদ আলী, ইসমাইল মেম্বারের ছেলে ইয়াবা সম্রাট রকি, সমন্বয় সিন্ডিকেট রাতের আধারে প্রতিদিন আনন্দ বাজারে মেঘনা নদীর পার কেটে নিচ্ছে , আনন্দ বাজার কমিটি, আবদুরর রহমান বাধা দিলে তাকে হুকমি দেয় এই ব্যাপারে কিছু না বলার জন্য । ড্রেজার মাতাব্বর পরিচলনা করে নব্য যুবলীগ নেতার ছোট ভাই নজরুল, বাঙ্গি কবির, রুপচান মেম্বারের বাতিজা মাজারুল,টেকপাড়ার ক্যাডার আমিরের ভাই আলামিন, তারা জোর করে কোটি টাকার বালু কেটে নিচ্ছে ১০ থেকে ১২টি ড্রেজার দিয়ে । সন্ধা হলেই শুরু এই বালু কাটার মহরত । গাজী আওলাদের সাথে কথা হলে তিনি বলেন,আমার বাড়ির সামনেই সন্ধা হলেই চলে এই বালু কাটা । আমিতো জড়িত নই বরং যাদের নাম উঠে এসেছে তারা এই কাজ করছে। তাদের ভয়ে আমাকে বাড়ি ছারা থাকতে হয় এবং তারা আমাকে পুলিশের ভয় দেখায় ও চুপ থাকতে বলে । প্রশাসনের নজরদারী না থাকায় বালু খেকোরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বলে ধারণা এলাবাসীর ।

এ ব্যাপারে সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকার বলেন,বিষয়টি ইতিপূর্বে আমার কানে এসেছে সরেজমিনে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিব । নুনের টেক এলাকার সামান্য কিছু অংশ ইজারা দেওয়া আছে এর বাইরে কেউ বালু কাটলে সেটি অবৈধ বলে তিনি জানান ।

উত্তর দিন